How to Fix your Target in Life? জীবনে কীভাবে টার্গেট ঠিক করবেন।

How to Fix your Target in Life? জীবনে কীভাবে টার্গেট ঠিক করবেন।



জীবনে কিছু করতে গেলে তোমাকে আগে টার্গেট Fix করতে হবে এবং নিজের সর্বস্ব দিয়ে চেষ্টা করতে হবে সেই টার্গেটে পৌঁছানো। রাস্তা অনেক কঠিন হলেও তুমি যদি একাগ্রতার সাথে চলতে থাকো তাহলে তুমি শেষমেশ গন্তব্যস্থলে পৌঁছে যাবে। চলার পথে অনেক বাধা আসবে অনেক সময় অনেকে কথা শোনাবে। অনেক বাজে পরিস্থিতির সম্মুখীন তোমাকে হতে হবে, কিন্তু তোমাকে হারালে হবে না। লক্ষ্যভ্রষ্ট হলে হবে না। বরং লক্ষ্য স্থির রেখে এগিয়ে যেতে হবে সামনের দিকে আর তুমি যদি দু নৌকায় পা দিয়ে চলো, তাহলে পায়ের নিচ থেকে নৌকা সরে গেলে তুমি নদীর জলে পড়ে যাবে অর্থাৎ জীবনে একটাই টার্গেট রাখ, এটা না ওটা করতে করতে শেষমেশ দেখবে কোনটাই হবেনা। সারা জীবন আফসোস করে মরতে হবে তবে চারপাশের মানুষ জন্য লক্ষ্যভ্রষ্ট করার জন্য আমরণ চেষ্টা করবে। কিন্তু তোমাকে কারো কথায় কান দিলে হবে না নিজের মনের কথা শোনো এবং একপা দুপা করতে করতে এগিয়ে চলো সফলতার দিকে। লোকের কথা শুনে তুমি যদি লক্ষ্যভ্রষ্ট ভাবে অসফল হয়ে যাও। তাহলে সেই লোকগুলোর নামে আজেবাজে কথা বলে বেড়াচ্ছে।


বন্ধু লাইফটা তোমার। তাই তোমার জীবনের সুক্ষ সুক্ষ ডিসিশন গুলো তোমার ভেবে নিতে হবে। জীবন একটা সাইকেল, চালাচ্ছ তুমি, তাই তোমার যেটা ভালো মনে হয় তুমি সেই রাস্তা দিয়েই যাও। কিন্তু একটা জিনিস তোমার সব সময় মাথায় রাখতে হবে আর সেটা হলো তার "টার্গেট পয়েন্ট।" তুমি যে রাস্তা দিয়ে যাওনা কেন মনে রেখো তোমাকে লক্ষ্যে পৌঁছতে হবে ভালো জিনিস পেতে গেলে একটু দেরি হয়। তাই বলে ধৈর্য হারালে হবে না ভালো জিনিসের প্রাইস একটু বেশি হয়। 


তাই পরিশ্রমটা তোমাকে একটু বেশি করতে হবে। থেমে গেলে হবে না। থেমে গেলে তো গল্প শেষ। তাই এর থেকে বড় লিখতে থাকো হ্যাপি এন্ডিং পর্যন্ত। আরে বস 100 তে 100 না পেলেও 90 তো পাবে। আর সেটাই কম্পু। আর তুমি যদি কিছুই না করো তাহলে 90 তো দূরের কথা তুমি জিরো পাবে না। তোমাকে মাইনাসে নাম্বার দেওয়া হবে। তাই নিজের ভবিষ্যৎ থাকে তুমি যদি স্ট্রং বানাতে চাও তাহলে নিজেকে প্রেজেন্ট টাইম utilise করতে শেখো। মনে রেখো, আজকের পরিশ্রম তোমার কালকের সফলতা। তাই মনটাকে স্থির রেখে আজেবাজে চিন্তা থেকে নিজেকে দূরে রাখো।


মনোযোগ দিয়ে কাজ করতে থাকো। যদি তুমি তোমার কাজকে ভালোবাসো তাহলে তোমার কাজ ও তোমাকে ভালোবাসবে। আচ্ছা তুমি যে গেম খেলে সময় নষ্ট করছো? তুমি নিজে একবার ভেবে বলতো এই গেম কি তোমাকে খেতে পড়তে দেবেন? সর্বোত্তম মনে হয় দেবে না। পারলে এরকম একটা গেম বানানোর চেষ্টা করো। কারণ যেই গেমটা বানিয়েছে সে কিন্তু লাখ লাখ টাকা কামাচ্ছে। আর এদিকে তুমি রিচার্জ করে বেড়াচ্ছো। পর থেকে তুমি যদি নিজের নিজের প্রফেশন এর পিছনে সময় দাও তাহলে ভবিষ্যতে শুধু তোমাকে খেতে পড়তে দেবে না বরং তোমার মান-সম্মান তোমার মর্যাদা তোমার ফ্যামিলির দায়িত্ব এমনকি তোমার মানি ফ্রিডম সব কিছুই দেবে। তাই আজকে রাত তোমার হাতে তুমি গেম খেলে সময় নষ্ট করবে নাকি নিজের টার্গেটটা ফুলফিল করবেন। সময়ের মূল্যটা তুমি সেদিনই বুঝতে পারবে যে দিন তোমার হাতে আর সময় থাকবে না। 24 ঘন্টা দিন সবার জন্য তাই প্রত্যেকটা মিনিট কে সঠিকভাবে কাজে লাগাও তুমি চেষ্টা করলে পারবে না এমন কোন জিনিস নেই। শুধু আমি কেন তুমি নিজেও জানো যে তুমি একজন সুপার হিরো।