বাজেট কি? বাজেট কিভাবে তৈরি করতে হয়? বিস্তারিত বর্ণনা

what is budget?

মূল ধারার গণমাধ্যমে বাজেট শব্দটি আমরা অনেক শুনেছি। কিন্তু, বাজেট কি? বাজেট কেন দরকার? বা বাজেট কিভাবে করা হয়? সে সম্পর্কে টেলিভিশন পত্রিকায় খুব কমই আলোচনা করা হয়। একটি নির্দিষ্ট অর্থবছরে কোথায় কত টাকা ব্যয় হবে তার হিসেব করাই হল বাজেট। বাংলাদেশের সংবিধানে বাজেটকে বার্ষিক আর্থিক বিবরণী হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে। বাংলাদেশে প্রতি বছর পহেলা জুলাই থেকে পরের বছরের ৩০ই জুন পর্যন্ত সময়কে একটি অর্থবছর হিসেব করে বাজেট ঘোষণা করা হয়। Oralcoxbd.xyz এর এই পর্বে বাজেট সম্পর্কে প্রাথমিক আলোচনা করা হবে।



বাজেট কী?

বাজেট হলো নির্দিষ্ট সময়ের জন্য কোন দেশের সরকারের আয় ও ব্যয়ের বিস্তারিত হিসাব-নিকাশ। যে কোন সাধারণ মানুষও তার আয়-ব্যয়ের হিসাব মেলানোর জন্য একটি বাজেট নির্ধারণ করেন, তবে ব্যক্তি তার উপার্জনের পরে ঠিক করে সে কত টাকা খরচ করবে, আর এর ঠিক বিপরীতে সরকার আগে ঠিক করে দেশের জন্য আগামী বছরে কত টাকা খরচ হবে তখন সেই খরচ অনুযায়ী কোন কোন খাত থেকে কত টাকা উপার্জন করতে হবে তা ঠিক করা হয়। কথায় আছে আয় বুঝে ব্যয় কর, কিন্তু রাষ্ট্র বা সরকার ব্যয় বুঝে আয় করে। সরকারের আয় ব্যয়ের হিসাব এর সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ দুটি বিষয় হলো রাজস্ব আয় ও রাজস্ব ব্যয়। সরকার পরিচালনার যাবতীয় খরচ কে বলা হয় রাজস্ব ব্যয়। সরকারি কর্মচারীদের বেতন-ভাতা আইন-শৃঙ্খলা রক্ষা প্রশাসন পরিচালনা কৃষিবাজারের মত জরুরী খাতে ভর্তুকি প্রদান, সামাজিক কর্মসূচি বাস্তবায়নের মতো বিভিন্ন খাতে রাজস্ব ব্যয় হয়ে থাকে। অন্যদিকে নির্দিষ্ট কিছু উৎস থেকে অর্থ উপার্জন করাকে বলা হয় রাজস্ব আয়।


রাজস্ব আয় মোটাদাগে তিনটি ভাগে ভাগ করা যায়। যেমন প্রত্যক্ষ কর ও পরোক্ষ কর এবং কর বহির্ভূত আয়। 


প্রত্যক্ষ করের মধ্যে আছে কর্পোরেট কর, ভূমি রাজস্ব ইত্যাদি। মূল্য সংযোজন কর, আমদানি শুল্ক ইত্যাদি এর বহির্ভূত। এর মধ্যে আছে বিভিন্ন সরকারি প্রতিষ্ঠানের মুনাফা, সরকারি সম্পদ এর ভাড়া, ইজারা টোল থেকে আয়, জরিমানা ও দণ্ড থেকে আয় ইত্যাদি এসকল ধরনের আয়ের বাইরে আরেক ধরনের আর্থিক পরিকল্পনা থাকে, যাকে বলা হয় উন্নয়ন বাজেট দেশ। পরিচালনার ব্যাপারে বিভিন্ন উন্নয়ন পরিকল্পনা বাস্তবায়নের জন্য যে বরাদ্দ রাখা হয় তাকে উন্নয়ন বাজেট বলে। রাস্তা নির্মাণ, সেতু নির্মাণ, বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপন, স্কুল কলেজ হাসপাতাল তৈরীর মতো খরচ উন্নয়ন বাজেটে উঠে আসে।


প্রতিবছর বাজেট পাস হওয়ার পর সরকার দাবি করে বাজেট খুব ভালো হয়েছে। এর বিপরীতে বিরোধী দল বলে বাজেট মোটেও ভালো হয়নি। বাজেট ভালো-মন্দ হয় কিসের ভিত্তিতে তা বুঝতে হলে সুষম বাজেট ও অসম বাজেট সম্পর্কে জানতে হবে।


সুষম বাজেট কী?

সুষম বাজেট হলো যখন সরকারের মোট আয় ও ব্যয়ের হিসাব সমান সমান হয়। তার মানে সরকার যে পরিমাণ অর্থ খরচ করবে সেই পরিমাণ অর্থ আয় করার সম্ভাব্য খাত নির্ধারণ করতে সক্ষম হয়। 


অসম বাজেট কী?

অন্যদিকে অসম বাজেট হলো যেখানে আয়-ব্যয়ের হিসেবে সামঞ্জস্য থাকেনা। অসম বাজেট আবার দুই প্রকার। 

যেমন: উদ্বৃত্ত বাজেট এবং ঘাটতি বাজেট 


উদ্বৃত্ত বাজেট কী?

ব্যয়ের তুলনায় আয় বেশি হলে তাকে উদ্বৃত্ত বাজেট বলে।


ঘাটতি বাজেট কাকে বলে? 

অন্যদিকে ব্যয় বেশি কিন্তু আয় কম হলে তাকে বলে ঘাটতি বাজেট। বাজেটে ঘাটতি পূরণ করার জন্য সরকার বিদেশি রাষ্ট্র এবং দাতা সংস্থাগুলোর কাছ থেকে ঋণ গ্রহণ করে।


অনেক সময় দেশের ব্যাংকিং ব্যবস্থা থেকেও সরকার ঋণ নিতে পারেন। এছাড়া সঞ্চয়পত্র বিক্রি করে সাধারণ মানুষের কাছ থেকেও সরকার ঋণ নেয়। উন্নত দেশগুলোতে সাধারণত সুষম বাজেট করা হয়। ইতালি, অস্ট্রিয়া, সুইজারল্যান্ড এর মত উন্নত দেশে সুষমা বাজেট প্রণয়নের আইন আছে। সুষম বাজেট স্বয়ংসম্পূর্ণ অর্থনীতির বহিঃপ্রকাশ। উন্নত এবং উন্নয়নশীল দেশগুলোতে ঘাটতি বাজেট বেশি দেখা যায় ঘাটতি বাজেট সকল ক্ষেত্রেই খারাপ নয়। অর্থনীতিবিদেরা মনে করেন দরিদ্র দেশগুলোর বাজেটে কিছুটা ঘাটতি ধাকা ভালো। যার ফলে ঘাটতি পূরণের চাপ থেকে অর্থনীতিতে উদ্দীপনা সৃষ্টি হয়। তবে বাজেটে অতিরিক্ত ঘাটতি কোন দেশের জন্য কল্যাণকর নয়।



আজকে এই পর্যন্তই। আমাদের পোস্টগুলো আপনাদের কাছে কেমন লাগলো জানাতে ভূলবেন না। আপনাদের যদি কোনো প্রশ্ন থেকে থাকে অথবা আমাদের কোনো পরামর্শ, মতামত দিতে কমেন্ট বক্সের মাধ্যমে আমাদের জানাতে পারেন। আমাদের ওয়েবসাইট এর সাথে থাকার জন্য অনেক অনেক ধন্যবাদ।